Dhaka ০১:১২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নজরদারিতে মাদকাসক্ত অভিনেতা এবং সংগীতশিল্পীরা

  • Reporter Name
  • Update Time : ০৫:২৮:২৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১১ মে ২০২৩
  • 4008

তপন তালুকদার : মাদকাসক্ত অভিনয় ও সংগীতশিল্পীদের বিশেষ নজরদারিতে রেখেছে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর। যারা অভিনয় কিংবা সংগীতশিল্পী, তাদের বিষয়ে গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। মাদকের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ার বিষয়ে বেশ কয়েক জনের তথ্য পাওয়া গেছে। তাদের বিষয়গুলো খতিয়ে দেখা হচ্ছে। সম্প্রতি একটি অনুষ্ঠানে গিয়ে সারেগামাপা-খ্যাত সংগীতশিল্পী মাইনুল আহসান নোবেলের ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ এবং তার পরবর্তী বক্তব্য সবার জন্য নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। বিষয়টি মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে। সংগীতশিল্পী নোবেলের মাদক সংশ্লিষ্টতা ও জীবনযাপনের বিষয়ে অনেকেই অনেক ধরনের বক্তব্য দিয়ে থাকেন। তার পরিবার থেকেও নেতিবাচক তথ্য পাওয়া গেছে। এরই মধ্যে নোবেলের নিয়মিত মাদক সেবনের বিষয় নিয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের আলোচনা হয়েছে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে এসব বিষয় অবহিত করা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশনা পেলে এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেবে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর। এদিকে মাদক সম্পৃক্ততার অভিযোগে নায়িকা পরীমণির মামলা চলমান রয়েছে উল্লেখ করে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর বলছে, রাজনৈতিক দলের নেতাদের পরিবারের সদস্য, সংগীতশিল্পী ও অভিনয়শিল্পী পরিবারের সন্তান-সন্ততি, খেলোয়াড়দের সন্তান-সন্ততি, গোয়েন্দা কর্মকর্তার পরিবারের সদস্য, সন্তান-সন্ততির বিষয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের কাছে তথ্য প্রমাণ রয়েছে। এসব বিষয় খতিয়ে দেখা হচ্ছে। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের পরিচালক (অপারেশন্স ও গোয়েন্দা) তানভীর মমতাজ বলেন, কারও নাম বলছি না। তবে যাদের বিরুদ্ধে মাদক সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ রয়েছে, তারা আমাদের নজরদারিতে আছে। তাদেরকে আইনের আওতায় আনতে যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করতে কাজ চলছে।

Tag :
সর্বাধিক পঠিত

https://dainiksurjodoy.com/wp-content/uploads/2023/12/Green-White-Modern-Pastel-Travel-Agency-Discount-Video5-2.gif

নিউইয়র্কে সেইভ দ্য পিপল’র উদ্যোগে হালাল খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

নজরদারিতে মাদকাসক্ত অভিনেতা এবং সংগীতশিল্পীরা

Update Time : ০৫:২৮:২৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১১ মে ২০২৩

তপন তালুকদার : মাদকাসক্ত অভিনয় ও সংগীতশিল্পীদের বিশেষ নজরদারিতে রেখেছে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর। যারা অভিনয় কিংবা সংগীতশিল্পী, তাদের বিষয়ে গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। মাদকের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ার বিষয়ে বেশ কয়েক জনের তথ্য পাওয়া গেছে। তাদের বিষয়গুলো খতিয়ে দেখা হচ্ছে। সম্প্রতি একটি অনুষ্ঠানে গিয়ে সারেগামাপা-খ্যাত সংগীতশিল্পী মাইনুল আহসান নোবেলের ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ এবং তার পরবর্তী বক্তব্য সবার জন্য নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। বিষয়টি মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে। সংগীতশিল্পী নোবেলের মাদক সংশ্লিষ্টতা ও জীবনযাপনের বিষয়ে অনেকেই অনেক ধরনের বক্তব্য দিয়ে থাকেন। তার পরিবার থেকেও নেতিবাচক তথ্য পাওয়া গেছে। এরই মধ্যে নোবেলের নিয়মিত মাদক সেবনের বিষয় নিয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের আলোচনা হয়েছে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে এসব বিষয় অবহিত করা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশনা পেলে এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেবে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর। এদিকে মাদক সম্পৃক্ততার অভিযোগে নায়িকা পরীমণির মামলা চলমান রয়েছে উল্লেখ করে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর বলছে, রাজনৈতিক দলের নেতাদের পরিবারের সদস্য, সংগীতশিল্পী ও অভিনয়শিল্পী পরিবারের সন্তান-সন্ততি, খেলোয়াড়দের সন্তান-সন্ততি, গোয়েন্দা কর্মকর্তার পরিবারের সদস্য, সন্তান-সন্ততির বিষয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের কাছে তথ্য প্রমাণ রয়েছে। এসব বিষয় খতিয়ে দেখা হচ্ছে। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের পরিচালক (অপারেশন্স ও গোয়েন্দা) তানভীর মমতাজ বলেন, কারও নাম বলছি না। তবে যাদের বিরুদ্ধে মাদক সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ রয়েছে, তারা আমাদের নজরদারিতে আছে। তাদেরকে আইনের আওতায় আনতে যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করতে কাজ চলছে।