Dhaka ১১:১৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সীতাকুণ্ড আওয়ামী লীগের তৃনমূলে লায়ন ইমরানের অবস্থান শক্ত

  • Reporter Name
  • Update Time : ১০:১২:২২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৩
  • 6455

সজীব চৌধুরী : চট্টগ্রাম-৪ আসনটি চট্টগ্রাম জেলার সীতাকুণ্ড উপজেলা এবং চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন এর ০৯ ও ১০ নং ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত। এখানে ২০১৪ ও ২০১৮ সালের নির্বাচনে নতুন মূখ হিসেবে জাতীয় নির্বাচন করে সংসদ সদস্য হয়েছেন দিদারুল আলম। সাংসদ নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই অভিযোগ ছাড়ছিলো না এমপি দিদারুল আলমের। পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর প্রচার প্রচারণায় অংশ নেয়া, আওয়ামী রাজনীতি না করে আওয়ামী লীগের টোকেনে এমপি হওয়া, বেগম খালেদা জিয়ার সাথে ঢাকাতে সাক্ষাৎ করা, সীতাকুণ্ড আওয়ামী লীগে কোন্দল সৃষ্টি করা, সীতাকুণ্ড উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর বিরুদ্ধে কাজ করা, বিগত চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আজম নাছির উদ্দিনকে পরিপূর্ণ সমর্থন না দেওয়াসহ নানা অভিযোগ উঠে তার বিরুদ্ধে। চট্টগ্রাম-৪ আসন সীতাকুণ্ডের তৃণমূল নেতাকর্মীরা বলছেন, আওয়ামী লীগ তিন মেয়াদে ক্ষমতায় থাকলেও চট্টগ্রাম-৪ আসন সীতাকুণ্ডে আওয়ামী লীগ যেন বিরোধী দলের মতো। হঠাৎ নতুন মূখ হিসেবে আওয়ামী লীগের ব্যানারে সংসদে যাওয়া দিদারুল আলমের সাথে দলীয় নেতাকর্মীদের সম্পর্ক নেই সেভাবে। ফলে সীতাকুণ্ডে আওয়ামী লীগে দিদারুল আলমের যে শক্ত অবস্থান গড়ে ওঠার কথা সেভাবে তা হয়নি। বরং দলের ভিতরে গ্রুপিং সৃষ্টি হয়েছে। নেতাকর্মীদের দাবি, এবার লায়ন আলহাজ্ব মোহাম্মদ ইমরানকে আওয়ামী লীগ থেকে আগামী দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে সীতাকুণ্ড ৪ আসসে প্রার্থী করা হোক। যেন দল ও দলের নেতাকর্মীরা এমপির কাছে গিয়ে স্বস্তির নিশ্বাস ফেলতে পারেন। পাশাপাশি আওয়ামী লীগ সরকার তিন মেয়াদে যে উন্নয়নযজ্ঞ চালাচ্ছে তা জনগণের ঘরে ঘরে পৌছানো যাবে। বিগত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যশী ছিলেন আলহাজ্ব মোহাম্মদ ইমরান। ফলে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সীতাকুণ্ডের তৃণমূল নেতাকর্মীদের দাবি, আওয়ামী লীগের তৃণমূল পর্যায় থেকে বেড়ে ওঠা শিল্পপতি সিমনি গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক লায়ন আলহাজ্ব মোহাম্মদ ইমরানকে দলীয় প্রার্থী হিসেবে মনোনীত করা হোক। আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে সীতাকুণ্ডের তৃণমূলে বেশ গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে লায়ন আলহাজ্ব মোহাম্মদ ইমরানের। জানা গেছে আওয়ামী লীগ থেকে এ আসনে মনোনোয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে বর্তমান এমপি দিদারুল আলম ছাড়াও লায়ন আলহাজ্ব মোহাম্মদ ইমরানের একটি শক্ত অবস্থান রয়েছে। স্থানীয় একটি সুত্র জানায় লায়ন আলহাজ্ব মোহাম্মদ ইমরান সীতাকুণ্ড উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান ও শিল্পপতি ইমতিয়াজ ইকরামের ছোট ভাই। লায়ন আলহাজ্ব মোহাম্মদ ইমরান দৈনিক সূর্যোদয়কে বলেন, সীতাকুণ্ডের সাথে আমার রয়েছে আত্মার সম্পর্ক। এ সীতাকুণ্ডের উন্নয়ন পরিকল্পনা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে মাঠ পর্যায়ে কাজ করছি। দলের নীতি ও আদর্শকে সামনে রেখে জনগণের দুয়ারে দুয়ারে গিয়ে বঙ্গবন্ধু কন্যার যে উন্নয়ন তা প্রচার করছি এবং তাদের পাশে থাকার চেষ্টা করছি। ফলে সীতাকুণ্ডের সব ইউনিয়ন পর্যায়ে চষে বেড়িয়েছি। দলীয় সভানেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যার যে স্মার্ট বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখছেন সে স্বপ্নের সহযাত্রী হতে চায়সীতাকুণ্ডবাসী। সীতাকুণ্ডবাসীর প্রতিনিধিত্ব করার জন্য গনতন্ত্রের মানষকন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে একবার সীতাকুণ্ডবাসীর সেবা করার সুযোগ চাই। যদি দল মনোনয়ন দেয় তাহলে সীতাকুণ্ডে আওয়ামী লীগকে আরো শক্তিশালী করতে পারবো। নাম প্রকাশ না করার শর্তে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের এক নেতা জানান চট্টগ্রাম-৪ (সীতাকুণ্ড) আসনের আওয়ামী লীগ সমর্থিত এমপি দিদারুল আলম গত দুইবার তিনি নৌকা প্রতীকে এ আসন থেকে সংসদ সদস্যা নির্বাচিত হয়েছেন। সম্পর্কে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র মনজুর আলমের ভাতিজা তিনি। চট্টগ্রাম-৪ (সীতাকুণ্ড) আসনের সাবেক এমপি আবুল কাশেম মাস্টারের মৃত্যুর পর এমপি দিদারুল আলম সেই ঘাঁটিতে জণগনের কাছে ভালো ইমেজ তৈরি করতে পারেননি বলে স্থানীয় নেতাকর্মীদের দাবি। তবে বিএনপি করে আওয়ামী লীগের টিকেট পাওয়া নিয়ে তার বিরুদ্ধে গুঞ্জন শুরু থেকেই ছিলো।

Tag :
সর্বাধিক পঠিত

https://dainiksurjodoy.com/wp-content/uploads/2023/12/Green-White-Modern-Pastel-Travel-Agency-Discount-Video5-2.gif

দাঁতমারা সেলফি রোড়ে গাছের সঙ্গে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় নিহত ১

সীতাকুণ্ড আওয়ামী লীগের তৃনমূলে লায়ন ইমরানের অবস্থান শক্ত

Update Time : ১০:১২:২২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৩

সজীব চৌধুরী : চট্টগ্রাম-৪ আসনটি চট্টগ্রাম জেলার সীতাকুণ্ড উপজেলা এবং চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন এর ০৯ ও ১০ নং ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত। এখানে ২০১৪ ও ২০১৮ সালের নির্বাচনে নতুন মূখ হিসেবে জাতীয় নির্বাচন করে সংসদ সদস্য হয়েছেন দিদারুল আলম। সাংসদ নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই অভিযোগ ছাড়ছিলো না এমপি দিদারুল আলমের। পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর প্রচার প্রচারণায় অংশ নেয়া, আওয়ামী রাজনীতি না করে আওয়ামী লীগের টোকেনে এমপি হওয়া, বেগম খালেদা জিয়ার সাথে ঢাকাতে সাক্ষাৎ করা, সীতাকুণ্ড আওয়ামী লীগে কোন্দল সৃষ্টি করা, সীতাকুণ্ড উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর বিরুদ্ধে কাজ করা, বিগত চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আজম নাছির উদ্দিনকে পরিপূর্ণ সমর্থন না দেওয়াসহ নানা অভিযোগ উঠে তার বিরুদ্ধে। চট্টগ্রাম-৪ আসন সীতাকুণ্ডের তৃণমূল নেতাকর্মীরা বলছেন, আওয়ামী লীগ তিন মেয়াদে ক্ষমতায় থাকলেও চট্টগ্রাম-৪ আসন সীতাকুণ্ডে আওয়ামী লীগ যেন বিরোধী দলের মতো। হঠাৎ নতুন মূখ হিসেবে আওয়ামী লীগের ব্যানারে সংসদে যাওয়া দিদারুল আলমের সাথে দলীয় নেতাকর্মীদের সম্পর্ক নেই সেভাবে। ফলে সীতাকুণ্ডে আওয়ামী লীগে দিদারুল আলমের যে শক্ত অবস্থান গড়ে ওঠার কথা সেভাবে তা হয়নি। বরং দলের ভিতরে গ্রুপিং সৃষ্টি হয়েছে। নেতাকর্মীদের দাবি, এবার লায়ন আলহাজ্ব মোহাম্মদ ইমরানকে আওয়ামী লীগ থেকে আগামী দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে সীতাকুণ্ড ৪ আসসে প্রার্থী করা হোক। যেন দল ও দলের নেতাকর্মীরা এমপির কাছে গিয়ে স্বস্তির নিশ্বাস ফেলতে পারেন। পাশাপাশি আওয়ামী লীগ সরকার তিন মেয়াদে যে উন্নয়নযজ্ঞ চালাচ্ছে তা জনগণের ঘরে ঘরে পৌছানো যাবে। বিগত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যশী ছিলেন আলহাজ্ব মোহাম্মদ ইমরান। ফলে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সীতাকুণ্ডের তৃণমূল নেতাকর্মীদের দাবি, আওয়ামী লীগের তৃণমূল পর্যায় থেকে বেড়ে ওঠা শিল্পপতি সিমনি গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক লায়ন আলহাজ্ব মোহাম্মদ ইমরানকে দলীয় প্রার্থী হিসেবে মনোনীত করা হোক। আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে সীতাকুণ্ডের তৃণমূলে বেশ গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে লায়ন আলহাজ্ব মোহাম্মদ ইমরানের। জানা গেছে আওয়ামী লীগ থেকে এ আসনে মনোনোয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে বর্তমান এমপি দিদারুল আলম ছাড়াও লায়ন আলহাজ্ব মোহাম্মদ ইমরানের একটি শক্ত অবস্থান রয়েছে। স্থানীয় একটি সুত্র জানায় লায়ন আলহাজ্ব মোহাম্মদ ইমরান সীতাকুণ্ড উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান ও শিল্পপতি ইমতিয়াজ ইকরামের ছোট ভাই। লায়ন আলহাজ্ব মোহাম্মদ ইমরান দৈনিক সূর্যোদয়কে বলেন, সীতাকুণ্ডের সাথে আমার রয়েছে আত্মার সম্পর্ক। এ সীতাকুণ্ডের উন্নয়ন পরিকল্পনা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে মাঠ পর্যায়ে কাজ করছি। দলের নীতি ও আদর্শকে সামনে রেখে জনগণের দুয়ারে দুয়ারে গিয়ে বঙ্গবন্ধু কন্যার যে উন্নয়ন তা প্রচার করছি এবং তাদের পাশে থাকার চেষ্টা করছি। ফলে সীতাকুণ্ডের সব ইউনিয়ন পর্যায়ে চষে বেড়িয়েছি। দলীয় সভানেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যার যে স্মার্ট বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখছেন সে স্বপ্নের সহযাত্রী হতে চায়সীতাকুণ্ডবাসী। সীতাকুণ্ডবাসীর প্রতিনিধিত্ব করার জন্য গনতন্ত্রের মানষকন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে একবার সীতাকুণ্ডবাসীর সেবা করার সুযোগ চাই। যদি দল মনোনয়ন দেয় তাহলে সীতাকুণ্ডে আওয়ামী লীগকে আরো শক্তিশালী করতে পারবো। নাম প্রকাশ না করার শর্তে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের এক নেতা জানান চট্টগ্রাম-৪ (সীতাকুণ্ড) আসনের আওয়ামী লীগ সমর্থিত এমপি দিদারুল আলম গত দুইবার তিনি নৌকা প্রতীকে এ আসন থেকে সংসদ সদস্যা নির্বাচিত হয়েছেন। সম্পর্কে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র মনজুর আলমের ভাতিজা তিনি। চট্টগ্রাম-৪ (সীতাকুণ্ড) আসনের সাবেক এমপি আবুল কাশেম মাস্টারের মৃত্যুর পর এমপি দিদারুল আলম সেই ঘাঁটিতে জণগনের কাছে ভালো ইমেজ তৈরি করতে পারেননি বলে স্থানীয় নেতাকর্মীদের দাবি। তবে বিএনপি করে আওয়ামী লীগের টিকেট পাওয়া নিয়ে তার বিরুদ্ধে গুঞ্জন শুরু থেকেই ছিলো।