Dhaka ০৮:৪৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রাম কারাগারকে দূর্নীতিমুক্ত করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন জেলার ইমরান

  • Reporter Name
  • Update Time : ০৮:৫৬:১৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৩
  • 2351

সুব্রত শুভ্র : থেমে গেছে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের দুর্নীতি ও অনিয়ম। টাকার বিনিময়ে বন্দীদের সঙ্গে স্বজনদের সাক্ষাত এবং অনৈতিক সুযোগ-সুবিধা এখন আর নেই। কারা বিধি অনুযায়ী দেওয়া হচ্ছে সাক্ষাতের সময়। জানা গেছে, কারা অভ্যন্তরের অনিয়মের অভিযোগে উঠলে গত ২৪ আগস্ট বুধবার কারা মহাপরিদর্শক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এএসএম আনিসুল হক স্বাক্ষরিত এক আদেশে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার দেওয়ান মোহাম্মদ তারিকুল ইসলামকে ভোলা জেলা কারাগারে বদলি করা হয়। এরপর একই আদেশে নোয়াখালী কারাগারের জেলার মোহাম্মদ এমরান হোসেন মিঞাকে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে জেলার হিসেবে দায়িত্ব প্রদান করা হয়। মোহাম্মদ এমরান হোসেন মিঞা দায়িত্ব পাওয়ার পর বন্দীদের সঙ্গে স্বজনদের সাক্ষাতের নামে প্রতিদিন বিপুল পরিমাণ টাকার যে লেনদেন চলতো তা পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়। দেশের অধিকাংশ কারাগার যেখানে দুনীতির আখড়ায় পরিনত হয়েছে সেখানে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারকে দুনীতিমুক্ত করে এক দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন জেলার ইমরান।কারাগার থেকে আদালতে আসা বন্দীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, সাধারণ বন্দীদের খাবারের মান উন্নয়নে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে জেলার হিসেবে দায়িত্ব পাওয়ার পর জেলার মোহাম্মদ এমরান হোসেন মিঞা গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রেখেছেন। খাবারের মান উন্নয়নে কারা বন্দীরা জেলার মোহাম্মদ এমরান হোসেন সবসময় দোয়া করেন। কারা অভ্যন্তরে মুড়ি-মুড়কির মতো বিক্রি হতো ইয়াবাসহ নানা প্রকার মাদক। বর্তমানে কারা অভ্যন্তরে মাদক বিক্রি নেই বললে চলে। জেলার মোহাম্মদ এমরান হোসেন মিঞা দৈনিক সূর্যোদয়কে বলেন, রাখিব নিরাপদ, দেখাব আলোর পথ এ শপথবাক্য মেনেই বন্দী এবং স্বজনদের সাথে আচরণ করা হচ্ছে। এ চেতনা ধারণ করে কারারক্ষীরা দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি আরও বলেন, কারাগারের কোন কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধে অনিয়ম-দুর্নীতির সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। উল্লেখ্য যে, ২০১৮ সালের ২৬ অক্টোবর ৪৪ লাখ ৪৩ হাজার টাকা, ২ কোটি ৫০ লাখ টাকার এফডিআর, ১ কোটি ৩০ লাখ টাকার ও মাদকদ্রব্যসহ কিশোরগঞ্জের ভৈরবে গ্রেফতার হন চট্টগ্রামের তৎকালীন জেলার সোহেল রানা বিশ্বাস।

Tag :
সর্বাধিক পঠিত

https://dainiksurjodoy.com/wp-content/uploads/2023/12/Green-White-Modern-Pastel-Travel-Agency-Discount-Video5-2.gif

ঈদের জামাতের জন্য প্রস্তুত কিশোরগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী শোলাকিয়া

চট্টগ্রাম কারাগারকে দূর্নীতিমুক্ত করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন জেলার ইমরান

Update Time : ০৮:৫৬:১৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৩

সুব্রত শুভ্র : থেমে গেছে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের দুর্নীতি ও অনিয়ম। টাকার বিনিময়ে বন্দীদের সঙ্গে স্বজনদের সাক্ষাত এবং অনৈতিক সুযোগ-সুবিধা এখন আর নেই। কারা বিধি অনুযায়ী দেওয়া হচ্ছে সাক্ষাতের সময়। জানা গেছে, কারা অভ্যন্তরের অনিয়মের অভিযোগে উঠলে গত ২৪ আগস্ট বুধবার কারা মহাপরিদর্শক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এএসএম আনিসুল হক স্বাক্ষরিত এক আদেশে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার দেওয়ান মোহাম্মদ তারিকুল ইসলামকে ভোলা জেলা কারাগারে বদলি করা হয়। এরপর একই আদেশে নোয়াখালী কারাগারের জেলার মোহাম্মদ এমরান হোসেন মিঞাকে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে জেলার হিসেবে দায়িত্ব প্রদান করা হয়। মোহাম্মদ এমরান হোসেন মিঞা দায়িত্ব পাওয়ার পর বন্দীদের সঙ্গে স্বজনদের সাক্ষাতের নামে প্রতিদিন বিপুল পরিমাণ টাকার যে লেনদেন চলতো তা পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়। দেশের অধিকাংশ কারাগার যেখানে দুনীতির আখড়ায় পরিনত হয়েছে সেখানে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারকে দুনীতিমুক্ত করে এক দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন জেলার ইমরান।কারাগার থেকে আদালতে আসা বন্দীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, সাধারণ বন্দীদের খাবারের মান উন্নয়নে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে জেলার হিসেবে দায়িত্ব পাওয়ার পর জেলার মোহাম্মদ এমরান হোসেন মিঞা গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রেখেছেন। খাবারের মান উন্নয়নে কারা বন্দীরা জেলার মোহাম্মদ এমরান হোসেন সবসময় দোয়া করেন। কারা অভ্যন্তরে মুড়ি-মুড়কির মতো বিক্রি হতো ইয়াবাসহ নানা প্রকার মাদক। বর্তমানে কারা অভ্যন্তরে মাদক বিক্রি নেই বললে চলে। জেলার মোহাম্মদ এমরান হোসেন মিঞা দৈনিক সূর্যোদয়কে বলেন, রাখিব নিরাপদ, দেখাব আলোর পথ এ শপথবাক্য মেনেই বন্দী এবং স্বজনদের সাথে আচরণ করা হচ্ছে। এ চেতনা ধারণ করে কারারক্ষীরা দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি আরও বলেন, কারাগারের কোন কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধে অনিয়ম-দুর্নীতির সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। উল্লেখ্য যে, ২০১৮ সালের ২৬ অক্টোবর ৪৪ লাখ ৪৩ হাজার টাকা, ২ কোটি ৫০ লাখ টাকার এফডিআর, ১ কোটি ৩০ লাখ টাকার ও মাদকদ্রব্যসহ কিশোরগঞ্জের ভৈরবে গ্রেফতার হন চট্টগ্রামের তৎকালীন জেলার সোহেল রানা বিশ্বাস।