Dhaka ১১:৫৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ১২ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কোটচাঁদপুরে পানবরজে পড়ে ছিল গৃহবধূর লাশ

  • Reporter Name
  • Update Time : ১০:০১:৩৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২৪
  • 9

ইনছান আলী, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর উপজেলার গুড়পাড়া গ্রামের একটি পান বরজ থেকে সালমা খাতুন (৩৫) নামে এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গলায় ফাঁস দিয়ে তাকে হত্যা করা হতে পারে বলে পরিবার দাবী করছে। সালমা খাতুন একই গ্রামের তরিকুল ইসলামের স্ত্রী ও হরিণাকুন্ডু উপজেলার খলিষাকুন্ডু গ্রামের হায়দার আলীর মেয়ে। শুক্রবার বিকালে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ঝিনাইদহ সদর হাসপাল মর্গে পাঠায়। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহত’র স্বামী তরিকুল ইসলামকে আটক করেছে পুলিশ। স্থানীয় ইউপি সদস্য শাফাউর রহমান জানান, দুপুরে বাড়ির পাশের পান নিজ বরজে সালামার লাশটি পাওয়া যায়। তার গলায় গভীর কালো দাগ ও পাশেই একটি ঘাস মারা বিষের বোতল পড়ে ছিল। নিহত’র নাক ও মুখমন্ডলে ক্ষত ছিল। সালমাকে হত্যা করা হতে পারে বলে গ্রামবাসি ধারণা করছে। নিহতর মা হালিমা খাতুন ও বোন নাজমা বেগম অভিযোগ করেন, স্বামী তরিকুল তাকে খুন করেছে। এর আগে সালমাকে দা নিয়ে হত্যার জন্য তাড়া করেছিল। প্রায় তাকে নির্যাতন করা হতো বলে বোন নাজমা বেগম অভিযোগ করেন। কোটচাঁদপুর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মুন্না বিশ্বাস ও ওসি সৈয়দ আল মামুন খবর পেয়ে শুক্রবার দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। ওসি সৈয়দ আল মামুন শুক্রবার বিকালে জানান, এ ঘটনায় নিহত’র স্বামী তরিকুলকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আনা হয়েছে। হত্যার উপযুক্ত তথ্য বা অভিযোগ পাওয়া গেলে তাকে গ্রেফতার করা হবে।

Tag :

কোটচাঁদপুরে পানবরজে পড়ে ছিল গৃহবধূর লাশ

Update Time : ১০:০১:৩৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২৪

ইনছান আলী, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর উপজেলার গুড়পাড়া গ্রামের একটি পান বরজ থেকে সালমা খাতুন (৩৫) নামে এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গলায় ফাঁস দিয়ে তাকে হত্যা করা হতে পারে বলে পরিবার দাবী করছে। সালমা খাতুন একই গ্রামের তরিকুল ইসলামের স্ত্রী ও হরিণাকুন্ডু উপজেলার খলিষাকুন্ডু গ্রামের হায়দার আলীর মেয়ে। শুক্রবার বিকালে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ঝিনাইদহ সদর হাসপাল মর্গে পাঠায়। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহত’র স্বামী তরিকুল ইসলামকে আটক করেছে পুলিশ। স্থানীয় ইউপি সদস্য শাফাউর রহমান জানান, দুপুরে বাড়ির পাশের পান নিজ বরজে সালামার লাশটি পাওয়া যায়। তার গলায় গভীর কালো দাগ ও পাশেই একটি ঘাস মারা বিষের বোতল পড়ে ছিল। নিহত’র নাক ও মুখমন্ডলে ক্ষত ছিল। সালমাকে হত্যা করা হতে পারে বলে গ্রামবাসি ধারণা করছে। নিহতর মা হালিমা খাতুন ও বোন নাজমা বেগম অভিযোগ করেন, স্বামী তরিকুল তাকে খুন করেছে। এর আগে সালমাকে দা নিয়ে হত্যার জন্য তাড়া করেছিল। প্রায় তাকে নির্যাতন করা হতো বলে বোন নাজমা বেগম অভিযোগ করেন। কোটচাঁদপুর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মুন্না বিশ্বাস ও ওসি সৈয়দ আল মামুন খবর পেয়ে শুক্রবার দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। ওসি সৈয়দ আল মামুন শুক্রবার বিকালে জানান, এ ঘটনায় নিহত’র স্বামী তরিকুলকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আনা হয়েছে। হত্যার উপযুক্ত তথ্য বা অভিযোগ পাওয়া গেলে তাকে গ্রেফতার করা হবে।