Dhaka ০৬:২২ অপরাহ্ন, বুধবার, ১২ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রামে কৃষি জমিতে ফসল উৎপাদন বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন

  • Reporter Name
  • Update Time : ১১:২৪:৩০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৬ জুলাই ২০২৩
  • 10

আজগর আলী মানিক : বাংলাদেশ কৃষি নির্ভর দেশ। প্রধান ফসল ধান।কিন্তু চট্টগ্রাম এর দক্ষিণাঞ্চলে দিন কে দিন ধান চাষ না করতে পারায় আজ সংকটের মুখোমুখি হতে চলেছে। অবৈধ ভাবে জমি দখল ও বিভিন্ন ফ্যাক্টরি গড়ে সেখানকার দূষিত ময়লা পানি, বিষাক্ত পানির কারণে এ অঞ্চলের কৃষি জমিতে নোংড়া ও বিষাক্ত পানি দিয়ে ভর্তি হয়ে গেছে। যার কারণে ধান চাষ করা সম্ভব হয় না। কারখানার এসিড মিশ্রিত বিষাক্ত পানিতে নষ্ট হচ্ছে ফসলি জমি, মরে যাচ্ছে মাছ।

দেশপ্রেমে উদ্বেলিত হয়ে জনস্বার্থে এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা’কে জেলার পটিয়া থানার বাসিন্দা মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আসসালামু আলাইকুম। আমি মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান জেলার পটিয়া থানার বাসিন্দা। আমি স্মরণ করছি জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানকে। আরোও স্মরণ যারা ৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে শহীদ হয়েছেন তাদেরকে। এছাড়াও জাতীয় ৪ নেতাকে। আমাদের চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার পক্ষ থেকে আমার পক্ষ থেকে আন্তরিক সালাম ও মোবারকবাদ।

মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান প্রধানমন্ত্রীর কাছে প্রশ্ন রেখে বলেন, আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে একটি প্রশ্ন করতে চাই। দক্ষিণ জেলা চট্টগ্রামের কোন থানায় কৃষি ধান ক্ষেত হচ্ছে না ২০১২ সাল থেকে। জিনিসটা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনার নলেজে জানা নাই। কারখানার বর্জ্য ও দূষিত পানিতে কৃষিজমির ফসল নষ্ট হচ্ছে। আশপাশের খাল-বিলের পানি পচে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। মরে যাচ্ছে প্রাকৃতিক মাছ। কারখানার ঝুট-বয়লারের বিষাক্ত ধোঁয়ায় চর্ম ও শ্বাসকষ্টসহ বিভিন্ন রোগে আক্রন্ত হচ্ছেন এলাকাবাসী।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনার কাছে অভিযোগ দিচ্ছি, কৃষি মন্ত্রণালয়, খাদ্য মন্ত্রণালয় সহ অনেক জায়গায় আমি অভিযোগ দিয়েছিলাম। কিন্তু কোন কাজ হচ্ছে না। এ বিষয়ে তিনি পরিবেশ অধিদফতর, স্থানীয় প্রশাসনসহ সকলের প্রতি কার্যকরী ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানান।

এছাড়াও ভূমিধস্যদের দখলে, তাদের নিয়ন্ত্রণে এখন অনেক ফসলি জমি। এতে কষ্ট পাচ্ছে অসহায় জনসাধারণ। শাহা আমানত ফুলকলি ফুলবনসহ আরোও বিভিন্ন ফ্যাক্টরির দূষিত পানি দিয়ে চাষবাদ হচ্ছে না। নষ্ট হচ্ছে প্রাকৃতিক সম্পদ। এছাড়া হাইব্রিড আওয়ামী লীগাররা তাদের অবৈধ ক্ষমতাবলে দখলে রেখেছে কয়েক একর জমি। সেখানে তাদের ইচ্ছে মতো মহিষের চারণভূমি গড়ে তুলেছে। ব্যক্তি স্বার্থে ব্যবহার করছে সাধারণ মানুষের সোনার ফসলের জমি। তারা আওয়ামী লীগের সম্মানকে মাটির সাথে মিশিয়ে দিয়ে নিজের স্বার্থ চরিতার্থ করে বেড়াচ্ছে।

মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান আশা প্রকাশ করে বলেন, এই জেলাগুলোতে লোকজন যদি ধান চাষ করতে পারে তাহলে জনগণের অনেক উপকার হবে বলে আশা করছি। কারখানার বিষাক্ত পানি সর্বত্র ছড়িয়ে পরেছে। কৃষি জমিতে ফসল উৎপাদন হচ্ছে না। নষ্ট হয়ে গেছে জমির উর্বরতা। অবৈধভাবে ভুমি দখল করে ও কারখানার বিষাক্ত বর্জ্যে নদীর পানি নষ্ট হয়ে যাওয়ায় আর কোনও কাজে আসছে না। চরম বিপাকে আর ভোগান্তিতে আছে এ এলাকার মানুষ।

এ বিষয়ে প্রতিকার চেয়ে ২০১৭ সালে কৃষি মন্ত্রণালয়ে দরখাস্ত দিয়েছিলাম। কিন্তু কোন সফলতা হয় নাই। কোন থানায় ধান চাষ হচ্ছে না।

এটার প্রকৃত কারণ ও সমাধান যদি বের করতে পারেন, বিষয়টা খুব জরুরি হয়ে পরেছে। খবর নিয়ে উপযুক্ত প্রমাণসহ তদন্তে উঠে আসবে। দেশ ও জাতির কল্যাণে আমি একজন ক্ষুদ্র ব্যক্তি হিসেবে নৌকো উপহার দেবো ইনশাল্লাহ আপনাকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী।

সাহসী মানুষ মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান বলেন, আমি ছোটবেলা থেকে আওয়ামী লীগ করি, আওয়ামী রাজনীতির সাথে জড়িত। ছাত্রলীগ, শ্রমিক লীগ, যুবলীগের আমি একজন ব্রতী রাজনৈতিক। সাবেক আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সিটি মেয়র মরহুম মহিউদ্দিন চৌধুরী’র রাজনীতি করতাম। আজও আওয়ামী লীগের একজন একনিষ্ঠ সমর্থক হয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা’র কাছে কৃষি খাতে উন্নয়ন ও সমস্যা সমাধানে জরুরি পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য আকুল আবেদন জানাচ্ছি।

Tag :

চট্টগ্রামে কৃষি জমিতে ফসল উৎপাদন বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন

Update Time : ১১:২৪:৩০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৬ জুলাই ২০২৩

আজগর আলী মানিক : বাংলাদেশ কৃষি নির্ভর দেশ। প্রধান ফসল ধান।কিন্তু চট্টগ্রাম এর দক্ষিণাঞ্চলে দিন কে দিন ধান চাষ না করতে পারায় আজ সংকটের মুখোমুখি হতে চলেছে। অবৈধ ভাবে জমি দখল ও বিভিন্ন ফ্যাক্টরি গড়ে সেখানকার দূষিত ময়লা পানি, বিষাক্ত পানির কারণে এ অঞ্চলের কৃষি জমিতে নোংড়া ও বিষাক্ত পানি দিয়ে ভর্তি হয়ে গেছে। যার কারণে ধান চাষ করা সম্ভব হয় না। কারখানার এসিড মিশ্রিত বিষাক্ত পানিতে নষ্ট হচ্ছে ফসলি জমি, মরে যাচ্ছে মাছ।

দেশপ্রেমে উদ্বেলিত হয়ে জনস্বার্থে এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা’কে জেলার পটিয়া থানার বাসিন্দা মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আসসালামু আলাইকুম। আমি মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান জেলার পটিয়া থানার বাসিন্দা। আমি স্মরণ করছি জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানকে। আরোও স্মরণ যারা ৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে শহীদ হয়েছেন তাদেরকে। এছাড়াও জাতীয় ৪ নেতাকে। আমাদের চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার পক্ষ থেকে আমার পক্ষ থেকে আন্তরিক সালাম ও মোবারকবাদ।

মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান প্রধানমন্ত্রীর কাছে প্রশ্ন রেখে বলেন, আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে একটি প্রশ্ন করতে চাই। দক্ষিণ জেলা চট্টগ্রামের কোন থানায় কৃষি ধান ক্ষেত হচ্ছে না ২০১২ সাল থেকে। জিনিসটা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনার নলেজে জানা নাই। কারখানার বর্জ্য ও দূষিত পানিতে কৃষিজমির ফসল নষ্ট হচ্ছে। আশপাশের খাল-বিলের পানি পচে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। মরে যাচ্ছে প্রাকৃতিক মাছ। কারখানার ঝুট-বয়লারের বিষাক্ত ধোঁয়ায় চর্ম ও শ্বাসকষ্টসহ বিভিন্ন রোগে আক্রন্ত হচ্ছেন এলাকাবাসী।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনার কাছে অভিযোগ দিচ্ছি, কৃষি মন্ত্রণালয়, খাদ্য মন্ত্রণালয় সহ অনেক জায়গায় আমি অভিযোগ দিয়েছিলাম। কিন্তু কোন কাজ হচ্ছে না। এ বিষয়ে তিনি পরিবেশ অধিদফতর, স্থানীয় প্রশাসনসহ সকলের প্রতি কার্যকরী ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানান।

এছাড়াও ভূমিধস্যদের দখলে, তাদের নিয়ন্ত্রণে এখন অনেক ফসলি জমি। এতে কষ্ট পাচ্ছে অসহায় জনসাধারণ। শাহা আমানত ফুলকলি ফুলবনসহ আরোও বিভিন্ন ফ্যাক্টরির দূষিত পানি দিয়ে চাষবাদ হচ্ছে না। নষ্ট হচ্ছে প্রাকৃতিক সম্পদ। এছাড়া হাইব্রিড আওয়ামী লীগাররা তাদের অবৈধ ক্ষমতাবলে দখলে রেখেছে কয়েক একর জমি। সেখানে তাদের ইচ্ছে মতো মহিষের চারণভূমি গড়ে তুলেছে। ব্যক্তি স্বার্থে ব্যবহার করছে সাধারণ মানুষের সোনার ফসলের জমি। তারা আওয়ামী লীগের সম্মানকে মাটির সাথে মিশিয়ে দিয়ে নিজের স্বার্থ চরিতার্থ করে বেড়াচ্ছে।

মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান আশা প্রকাশ করে বলেন, এই জেলাগুলোতে লোকজন যদি ধান চাষ করতে পারে তাহলে জনগণের অনেক উপকার হবে বলে আশা করছি। কারখানার বিষাক্ত পানি সর্বত্র ছড়িয়ে পরেছে। কৃষি জমিতে ফসল উৎপাদন হচ্ছে না। নষ্ট হয়ে গেছে জমির উর্বরতা। অবৈধভাবে ভুমি দখল করে ও কারখানার বিষাক্ত বর্জ্যে নদীর পানি নষ্ট হয়ে যাওয়ায় আর কোনও কাজে আসছে না। চরম বিপাকে আর ভোগান্তিতে আছে এ এলাকার মানুষ।

এ বিষয়ে প্রতিকার চেয়ে ২০১৭ সালে কৃষি মন্ত্রণালয়ে দরখাস্ত দিয়েছিলাম। কিন্তু কোন সফলতা হয় নাই। কোন থানায় ধান চাষ হচ্ছে না।

এটার প্রকৃত কারণ ও সমাধান যদি বের করতে পারেন, বিষয়টা খুব জরুরি হয়ে পরেছে। খবর নিয়ে উপযুক্ত প্রমাণসহ তদন্তে উঠে আসবে। দেশ ও জাতির কল্যাণে আমি একজন ক্ষুদ্র ব্যক্তি হিসেবে নৌকো উপহার দেবো ইনশাল্লাহ আপনাকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী।

সাহসী মানুষ মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান বলেন, আমি ছোটবেলা থেকে আওয়ামী লীগ করি, আওয়ামী রাজনীতির সাথে জড়িত। ছাত্রলীগ, শ্রমিক লীগ, যুবলীগের আমি একজন ব্রতী রাজনৈতিক। সাবেক আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সিটি মেয়র মরহুম মহিউদ্দিন চৌধুরী’র রাজনীতি করতাম। আজও আওয়ামী লীগের একজন একনিষ্ঠ সমর্থক হয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা’র কাছে কৃষি খাতে উন্নয়ন ও সমস্যা সমাধানে জরুরি পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য আকুল আবেদন জানাচ্ছি।