Dhaka ০৮:২৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নতুন মুড়িকাটা পেঁয়াজ বাজারে, স্বস্তিতে ক্রেতারা

মোসলেহ উদ্দিন আল রাজী: ভারত সরকার কতৃক সম্প্রতি পেঁয়াজ রফতানি বন্ধের খবরে দেশের পেঁয়াজের বাজার অস্থির করে তোলে দেশের অসাধু ব্যবসায়ীরা। ফলে গত কয়েক দিন প্রতি কেজি পেঁয়াজ ২২০ থেকে ২৪০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়েছে বাজারে। তবে নতুন মুড়িকাটা পেঁয়াজ বাজারে আসার কারণে স্বস্তি ফিরতে শুরু করেছে পেঁয়াজের বাজারে।

জানা গেছে, মুড়িকাটা পেঁয়াজ ১০০ থেকে ৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। পাতাসহ মুড়িকাটা পেঁয়াজের দাম নেমেছে ৬০ টাকা কেজিতে।

১৪ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার রাজধানীর বিভিন্ন কাঁচা বাজারে দেখা গেছে, দেশি মুড়িকাটা পেঁয়াজ প্রতি কেজি ১০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া ভ্যানগাড়িতে বিভিন্ন মহল্লার অলি-গলিতে ফেরি করে এ পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে।

পেঁয়াজ ব্যবসায়ীরা বলছেন, পুরাতন পেঁয়াজ বাজারে নেই বলেই চলে। বাজারে এখন নতুন পেঁয়াজের অভাব নেই। দামও কম। অধিকাংশ মানুষ নতুন পেঁয়াজ কিনছেন।

ত্রেতারা বলছেন, আমাদের দেশে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম এভাবে বেড়ে যাওয়া নতুন কিছু না। তবে হঠাৎ একটা পণ্যের দাম বেড়ে দিগুণ হয়ে যাওয়া অস্বাভাবিক। আজ বাজারে নতুন পেয়াঁজটাই কম মনে হচ্ছে। দেশি পেঁয়াজ নিয়েছি ১৩০ টাকা করে। দেশি একদম নতুন পেঁয়াজ আরও কম দামে পাওয়া যাচ্ছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, চলতি অর্থবছরের রবি মৌসুমে মোট দুই লাখ ৬০ হাজার হেক্টর জমিতে ৩৬ লাখ ৭৩ হাজার টন পেঁয়াজ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। এরমধ্যে প্রায় ৫৬ হাজার হেক্টরে এ বছর আবাদ করা হয়েছে মুড়িকাটা পেঁয়াজ। উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে প্রায় আট লাখ টন। দুই-তিন মাস দেশের বাজারে এ পেঁয়াজ থাকে। মার্চে হালি পেঁয়াজ আসা শুরু হবে। এর উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা প্রায় ২৮ লাখ টন। দেশে পেঁয়াজের চাহিদা প্রায় ৩০ লাখ টন। সর্বশেষ অর্থবছরে ৩৪ লাখ টনের বেশি পেঁয়াজ উৎপাদন হয়।

Tag :
সর্বাধিক পঠিত

https://dainiksurjodoy.com/wp-content/uploads/2023/12/Green-White-Modern-Pastel-Travel-Agency-Discount-Video5-2.gif

চট্টগ্রামে কোটাবিরোধী শিক্ষার্থী-ছাত্রলীগ সংঘর্যে রণক্ষেত্র ষোলশহর ষ্টেশন

নতুন মুড়িকাটা পেঁয়াজ বাজারে, স্বস্তিতে ক্রেতারা

Update Time : ০৩:১৪:০৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০২৩

মোসলেহ উদ্দিন আল রাজী: ভারত সরকার কতৃক সম্প্রতি পেঁয়াজ রফতানি বন্ধের খবরে দেশের পেঁয়াজের বাজার অস্থির করে তোলে দেশের অসাধু ব্যবসায়ীরা। ফলে গত কয়েক দিন প্রতি কেজি পেঁয়াজ ২২০ থেকে ২৪০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়েছে বাজারে। তবে নতুন মুড়িকাটা পেঁয়াজ বাজারে আসার কারণে স্বস্তি ফিরতে শুরু করেছে পেঁয়াজের বাজারে।

জানা গেছে, মুড়িকাটা পেঁয়াজ ১০০ থেকে ৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। পাতাসহ মুড়িকাটা পেঁয়াজের দাম নেমেছে ৬০ টাকা কেজিতে।

১৪ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার রাজধানীর বিভিন্ন কাঁচা বাজারে দেখা গেছে, দেশি মুড়িকাটা পেঁয়াজ প্রতি কেজি ১০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া ভ্যানগাড়িতে বিভিন্ন মহল্লার অলি-গলিতে ফেরি করে এ পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে।

পেঁয়াজ ব্যবসায়ীরা বলছেন, পুরাতন পেঁয়াজ বাজারে নেই বলেই চলে। বাজারে এখন নতুন পেঁয়াজের অভাব নেই। দামও কম। অধিকাংশ মানুষ নতুন পেঁয়াজ কিনছেন।

ত্রেতারা বলছেন, আমাদের দেশে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম এভাবে বেড়ে যাওয়া নতুন কিছু না। তবে হঠাৎ একটা পণ্যের দাম বেড়ে দিগুণ হয়ে যাওয়া অস্বাভাবিক। আজ বাজারে নতুন পেয়াঁজটাই কম মনে হচ্ছে। দেশি পেঁয়াজ নিয়েছি ১৩০ টাকা করে। দেশি একদম নতুন পেঁয়াজ আরও কম দামে পাওয়া যাচ্ছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, চলতি অর্থবছরের রবি মৌসুমে মোট দুই লাখ ৬০ হাজার হেক্টর জমিতে ৩৬ লাখ ৭৩ হাজার টন পেঁয়াজ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। এরমধ্যে প্রায় ৫৬ হাজার হেক্টরে এ বছর আবাদ করা হয়েছে মুড়িকাটা পেঁয়াজ। উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে প্রায় আট লাখ টন। দুই-তিন মাস দেশের বাজারে এ পেঁয়াজ থাকে। মার্চে হালি পেঁয়াজ আসা শুরু হবে। এর উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা প্রায় ২৮ লাখ টন। দেশে পেঁয়াজের চাহিদা প্রায় ৩০ লাখ টন। সর্বশেষ অর্থবছরে ৩৪ লাখ টনের বেশি পেঁয়াজ উৎপাদন হয়।