Dhaka ০২:৫৩ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

লক্ষ্মীপুরের মেঘনা নদীতে ফেরিতে আগুন

  • Reporter Name
  • Update Time : ০৭:৩৯:১৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৮ এপ্রিল ২০২১
  • 654

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি :
লক্ষ্মীপুরের মেঘনা নদীতে ফেরিতে আগুন
মেঘনা নদীর মাঝে লক্ষ্মীপুর থেকে ভোলার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়া কলমীলতা নামে একটি ফেরিতে আগুন লেগে ৯টি যানবাহন পুড়ে গেছে।। বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) ভোর ৪টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এতে কেউ হতাহত না হলেও দুটি গাড়ি ছাড়া বাকি সবগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিআইডব্লিউটিসি ভোলার ম্যানেজার মো. পারভেজ। তিনি বলেন, দুই ঘণ্টা চেষ্টার পরে আগুন নিয়ন্ত্রণে এনেছে। বর্তমানে ফেরিটি লক্ষ্মীপুরের মেঘনা নদীর একটি চর এলাকায় নোঙ্গর করে আছে।

তিনি আরও বলেন, খবর পেয়ে মাঝ নদীতে ফায়ার সার্ভিস কর্মীদের পৌঁছানো ছিল একটি বড় চ্যালেঞ্জ। যাত্রীরা ফেরি ছেড়ে মাছ ধরার ট্রলারে করে তীরে ওঠে।

তিনি বলেন, ১৬টি গাড়ি নিয়ে ভোলার উদ্দেশ্যে রাত ২টার দিকে লক্ষ্মীপুরের মজু চৌধুরীর ঘাট ত্যাগ করে ফেরিটি। আগুনে পিকআপ ভ্যান, ট্রাক, প্রাইভেটকার, মোটরসাইকেলসহ ৯টি গাড়ি পুড়ে গেছে। তবে কী কারণে আগুন লেগেছে তা এখনো জানা যায়নি। কারণ শনাক্তে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিস।

লক্ষ্মীপুরের মজু চৌধুরীর হাট ফেরিঘাটের প্রান্তিক সহকারী রেজাউল করিম রাজু বলেন, কীভাবে আগুন লেগেছে তা জানা যায়নি। তবে ট্রাকসহ ৯টি গাড়ি পুড়ে গেছে। ভোলার ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আগুন নিয়ন্ত্রণে এনেছেন।

ভোলা নৌ-পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুজন কুমার পাল জানান, লক্ষ্মীপুরের মজু চৌধুরীর ঘাট থেকে মাঝরাতে বিআইডব্লিউটিসির ফেরি ‘কলমীলতা’ ভোলার উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে। রাত ৪টার দিকে লক্ষ্মীপুরের মতিরহাট পার হয়ে মেঘনার মাঝ নদীতে আসার পর হঠাৎ আগুন লেগে যায়। প্রথমে কর্মচারীসহ যাত্রীরা ফেরির পেছনের দিকে নিরাপদে অবস্থান নেন। পরে একটি মাছ ধরার ট্রলারে তারা নিরাপদে ভোলার ইলিশা ঘাটে চলে আসে।

তিনি আরও জানান, ফেরিতে দুই তিনটি ট্রাক ছাড়া সবগুলো ট্রাক মালামালসহ পুড়ে গেছে।

ফেরিতে থাকা ভোলাগামী যাত্রী ইব্রাহিম জানান, আমি তখন ফেরির ক্যান্টিনে ছিলাম। ৪টার দিকে হঠাৎ করেই চলন্ত ফেরিতে দাউদাউ করে আগুন জ্বলে ওঠে। পরে যাত্রীরা ৯৯৯ নম্বরে ফোন করে। পরে জেনেছি, ভোলা থেকে ফায়ার সার্ভিসের ৩টি ইউনিট এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

পিকআপ ভ্যানের যাত্রী নাছির বলেন, আমার গাড়িতে বেঙ্গল প্লাস্টিকের মালামাল ছিল। আগুনে সেইসব পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। আগুনের বেশ ভয়াবহতা ছিল। উপায় না পেয়ে একটি মাছ ধরার ট্রলারে করে আমিসহ অনেকেই নিরাপদে ভোলা ফিরে আসি।

Tag :
সর্বাধিক পঠিত

https://dainiksurjodoy.com/wp-content/uploads/2023/12/Green-White-Modern-Pastel-Travel-Agency-Discount-Video5-2.gif

কারাগার থেকে পালানো দুই নারী জঙ্গি গ্রেপ্তার

লক্ষ্মীপুরের মেঘনা নদীতে ফেরিতে আগুন

Update Time : ০৭:৩৯:১৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৮ এপ্রিল ২০২১

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি :
লক্ষ্মীপুরের মেঘনা নদীতে ফেরিতে আগুন
মেঘনা নদীর মাঝে লক্ষ্মীপুর থেকে ভোলার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়া কলমীলতা নামে একটি ফেরিতে আগুন লেগে ৯টি যানবাহন পুড়ে গেছে।। বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) ভোর ৪টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এতে কেউ হতাহত না হলেও দুটি গাড়ি ছাড়া বাকি সবগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিআইডব্লিউটিসি ভোলার ম্যানেজার মো. পারভেজ। তিনি বলেন, দুই ঘণ্টা চেষ্টার পরে আগুন নিয়ন্ত্রণে এনেছে। বর্তমানে ফেরিটি লক্ষ্মীপুরের মেঘনা নদীর একটি চর এলাকায় নোঙ্গর করে আছে।

তিনি আরও বলেন, খবর পেয়ে মাঝ নদীতে ফায়ার সার্ভিস কর্মীদের পৌঁছানো ছিল একটি বড় চ্যালেঞ্জ। যাত্রীরা ফেরি ছেড়ে মাছ ধরার ট্রলারে করে তীরে ওঠে।

তিনি বলেন, ১৬টি গাড়ি নিয়ে ভোলার উদ্দেশ্যে রাত ২টার দিকে লক্ষ্মীপুরের মজু চৌধুরীর ঘাট ত্যাগ করে ফেরিটি। আগুনে পিকআপ ভ্যান, ট্রাক, প্রাইভেটকার, মোটরসাইকেলসহ ৯টি গাড়ি পুড়ে গেছে। তবে কী কারণে আগুন লেগেছে তা এখনো জানা যায়নি। কারণ শনাক্তে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিস।

লক্ষ্মীপুরের মজু চৌধুরীর হাট ফেরিঘাটের প্রান্তিক সহকারী রেজাউল করিম রাজু বলেন, কীভাবে আগুন লেগেছে তা জানা যায়নি। তবে ট্রাকসহ ৯টি গাড়ি পুড়ে গেছে। ভোলার ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আগুন নিয়ন্ত্রণে এনেছেন।

ভোলা নৌ-পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুজন কুমার পাল জানান, লক্ষ্মীপুরের মজু চৌধুরীর ঘাট থেকে মাঝরাতে বিআইডব্লিউটিসির ফেরি ‘কলমীলতা’ ভোলার উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে। রাত ৪টার দিকে লক্ষ্মীপুরের মতিরহাট পার হয়ে মেঘনার মাঝ নদীতে আসার পর হঠাৎ আগুন লেগে যায়। প্রথমে কর্মচারীসহ যাত্রীরা ফেরির পেছনের দিকে নিরাপদে অবস্থান নেন। পরে একটি মাছ ধরার ট্রলারে তারা নিরাপদে ভোলার ইলিশা ঘাটে চলে আসে।

তিনি আরও জানান, ফেরিতে দুই তিনটি ট্রাক ছাড়া সবগুলো ট্রাক মালামালসহ পুড়ে গেছে।

ফেরিতে থাকা ভোলাগামী যাত্রী ইব্রাহিম জানান, আমি তখন ফেরির ক্যান্টিনে ছিলাম। ৪টার দিকে হঠাৎ করেই চলন্ত ফেরিতে দাউদাউ করে আগুন জ্বলে ওঠে। পরে যাত্রীরা ৯৯৯ নম্বরে ফোন করে। পরে জেনেছি, ভোলা থেকে ফায়ার সার্ভিসের ৩টি ইউনিট এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

পিকআপ ভ্যানের যাত্রী নাছির বলেন, আমার গাড়িতে বেঙ্গল প্লাস্টিকের মালামাল ছিল। আগুনে সেইসব পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। আগুনের বেশ ভয়াবহতা ছিল। উপায় না পেয়ে একটি মাছ ধরার ট্রলারে করে আমিসহ অনেকেই নিরাপদে ভোলা ফিরে আসি।