Dhaka ০২:০৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কয়েদি পালানোর ঘটনায় বগুড়া কারাগারের জেলারকে স্ট্যান্ড রিলিজ

মো: মোতাহার আলী: চার ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত কয়েদি পালানোর ঘটনায় বগুড়া কারাগারের জেলার ফরিদুর রহমান রুবেলকে স্ট্যান্ড রিলিজ করেছে কর্তৃপক্ষ। তাকে রাজশাহী ডিআইজি প্রিজন কার্যালয়ে সংযুক্ত করা হয়েছে। গতকাল ১ জুলাই সোমবার কারা মহাপরিদর্শক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ এস এম আনিসুল হক স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে তাকে স্ট্যান্ড রিলিজ করা হয়। সোমবার রাত সাড়ে ১১টায় জেল সুপার আনোয়ার হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে জেলার ফরিদুর রহমান রুবেলকে স্ট্যান্ড রিলিজের নির্দেশ দিয়েছে কারা অধিদপ্তর। তাকে রাজশাহী ডিআইজি প্রিজন কার্যালয়ে সংযুক্ত করা হয়েছে। এর আগে, দায়িত্বে অবহেলার বিষয়টি তদন্তে উঠে আসায় বগুড়া কারাগারের ডেপুটি জেলার হোসেনুজ্জামান, প্রধান কারারক্ষী আব্দুল মতিনসহ ৫ জনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। এছাড়া আরও ৩ জনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করা হয়। উল্লেখ্য, গত ২৫ জুন মঙ্গলবার দিবাগত রাতে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত চার কয়েদি কারাগার থেকে পালিয়ে যান। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় পুলিশ চেলোপাড়ার চাষি বাজার এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করে। কয়েদিরা হলেন- কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী উপজেলার দিয়াডাঙ্গা এলাকার নজরুল ইসলাম ওরফে মজনু (কয়েদি নম্বর-৯৯৮), নরসিংদীর মাধবদী উপজেলার ফজরকান্দি এলাকার আমির হোসেন (কয়েদি নম্বর-৫১০৫), বগুড়ার কাহালু পৌরসভার মেয়র আবদুল মান্নানের ছেলে মো. জাকারিয়া (কয়েদি নম্বর-৩৬৮৫) এবং বগুড়ার কুটুরবাড়ি পশ্চিমপাড়া এলাকার ফরিদ শেখ (কয়েদি নম্বর-৪২৫২)। ২৬ জুন বুধবার দুপুরে এ ঘটনায় বগুড়া জেলা প্রশাসকের গঠিত ৬ সদস্যের এবং অতিরিক্ত কারা মহাপরিদর্শক শেখ সুজাউর রহমান সুজার নেতৃত্বে ৩ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়। বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) থেকে জেলা প্রশাসন ও ডিআইজি প্রিজনের গঠিত পৃথক কমিটি ঘটনার তদন্ত শুরু করে।

Tag :
সর্বাধিক পঠিত

https://dainiksurjodoy.com/wp-content/uploads/2023/12/Green-White-Modern-Pastel-Travel-Agency-Discount-Video5-2.gif

সংঘর্ষে রণক্ষেত্র যাত্রাবাড়ীর কাজলা থেকে শনিরআখড়া

কয়েদি পালানোর ঘটনায় বগুড়া কারাগারের জেলারকে স্ট্যান্ড রিলিজ

Update Time : ১২:২৫:২৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ জুলাই ২০২৪

মো: মোতাহার আলী: চার ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত কয়েদি পালানোর ঘটনায় বগুড়া কারাগারের জেলার ফরিদুর রহমান রুবেলকে স্ট্যান্ড রিলিজ করেছে কর্তৃপক্ষ। তাকে রাজশাহী ডিআইজি প্রিজন কার্যালয়ে সংযুক্ত করা হয়েছে। গতকাল ১ জুলাই সোমবার কারা মহাপরিদর্শক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ এস এম আনিসুল হক স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে তাকে স্ট্যান্ড রিলিজ করা হয়। সোমবার রাত সাড়ে ১১টায় জেল সুপার আনোয়ার হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে জেলার ফরিদুর রহমান রুবেলকে স্ট্যান্ড রিলিজের নির্দেশ দিয়েছে কারা অধিদপ্তর। তাকে রাজশাহী ডিআইজি প্রিজন কার্যালয়ে সংযুক্ত করা হয়েছে। এর আগে, দায়িত্বে অবহেলার বিষয়টি তদন্তে উঠে আসায় বগুড়া কারাগারের ডেপুটি জেলার হোসেনুজ্জামান, প্রধান কারারক্ষী আব্দুল মতিনসহ ৫ জনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। এছাড়া আরও ৩ জনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করা হয়। উল্লেখ্য, গত ২৫ জুন মঙ্গলবার দিবাগত রাতে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত চার কয়েদি কারাগার থেকে পালিয়ে যান। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় পুলিশ চেলোপাড়ার চাষি বাজার এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করে। কয়েদিরা হলেন- কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী উপজেলার দিয়াডাঙ্গা এলাকার নজরুল ইসলাম ওরফে মজনু (কয়েদি নম্বর-৯৯৮), নরসিংদীর মাধবদী উপজেলার ফজরকান্দি এলাকার আমির হোসেন (কয়েদি নম্বর-৫১০৫), বগুড়ার কাহালু পৌরসভার মেয়র আবদুল মান্নানের ছেলে মো. জাকারিয়া (কয়েদি নম্বর-৩৬৮৫) এবং বগুড়ার কুটুরবাড়ি পশ্চিমপাড়া এলাকার ফরিদ শেখ (কয়েদি নম্বর-৪২৫২)। ২৬ জুন বুধবার দুপুরে এ ঘটনায় বগুড়া জেলা প্রশাসকের গঠিত ৬ সদস্যের এবং অতিরিক্ত কারা মহাপরিদর্শক শেখ সুজাউর রহমান সুজার নেতৃত্বে ৩ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়। বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) থেকে জেলা প্রশাসন ও ডিআইজি প্রিজনের গঠিত পৃথক কমিটি ঘটনার তদন্ত শুরু করে।