Dhaka ০১:৪৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

উৎসব মুখর পরিবেশে কুয়েতের জাতীয় ও স্বাধীনতা দিবস উদযাপন

মোঃ বিলাল উদ্দিন, কুয়েত ব্যুরো প্রধান: মধ্যপ্রাচ্যের তেল সমৃদ্ধ দেশ কুয়েতে।
উৎসব মুখর পরিবেশে নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে আজ ২৬ ফেব্রুয়ারি ৩৩তম তম স্বাধীনতা দিবস উদযাপন করছে কুয়েত। ব্রিটিশদের কাছ থেকে ১৯৬১ সালে মুক্ত হওয়ার পরদিন ২৫ ফেব্রুয়ারী জাতীয় দিবস এবং ১৯৯১ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি ইরাকি আগ্রাসন থেকে মুক্ত হওয়ার কারণে দিনটিকে স্বাধীনতা দিবস হিসেবে ঘোষণা করেছে কুয়েত। প্রতি বছর ২৫ ও ২৬ ফেব্রুয়ারি নানা আয়োজনের মাধ্যমে যথাক্রমে জাতীয় ও স্বাধীনতা দিবস পালন করে দেশটি। কুয়েতের জাতীয় ও স্বাধীনতা দিবসে স্হানীয় নাগরিকদের পাশাপাশি কুয়েতে বসবাসরত বিভিন্ন দেশের অভিবাসীরা আনন্দ উল্লাসে মেতে উঠেন।

উপসাগরের তীর বর্তী ছোট এ দেশটি সমুদ্র সৈকতে প্রবাসীরা ও নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। দুই দিন সরকারি ছুটি থাকায় প্রবাসীদের মাঝে আনন্দ উল্লাসের কমতি নেই। দিবসটি উপলক্ষে কুয়েতের গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা ও সরকারি-বেসকারি ভবন, সড়ক, পার্ক, শপিং মল, বাসাবাড়িসহ সব জায়গা লাল-সবুজ-সাদা ও কালো জাতীয় পতাকার রঙে আলোক সজ্জায় সজ্জিত করা হয়। কুয়েতের বিভিন্ন অঞ্চলে দিবসটি উপলক্ষে আয়োজন করা হয় মেলা, বিভিন্ন নাচ,গান, অভিনয়, সার্কাস, যাদুসহ নানা ধরনের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের।

জাতীয় দিবস ও স্বাধীনতা দিবস ঘিরে কুয়েত সাজে নতুন রূপে। নারী, পুরুষ, বৃদ্ধা ছেলে মেয়ে সবাই জাতীয় পতাকার রঙে পোশাক পরিধান করে। দেশটির গুরুত্বপূর্ণ সড়কে ও সুউচ্চ ভবন গুলোতে কুয়েতের জাতীয় পতাকার পাশাপাশি বিভিন্ন দেশের জাতীয় পতাকা সহ আলোকসজ্জা করা হয়।

Tag :
সর্বাধিক পঠিত

https://dainiksurjodoy.com/wp-content/uploads/2023/12/Green-White-Modern-Pastel-Travel-Agency-Discount-Video5-2.gif

সংঘর্ষে রণক্ষেত্র যাত্রাবাড়ীর কাজলা থেকে শনিরআখড়া

উৎসব মুখর পরিবেশে কুয়েতের জাতীয় ও স্বাধীনতা দিবস উদযাপন

Update Time : ০৬:১৬:০৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

মোঃ বিলাল উদ্দিন, কুয়েত ব্যুরো প্রধান: মধ্যপ্রাচ্যের তেল সমৃদ্ধ দেশ কুয়েতে।
উৎসব মুখর পরিবেশে নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে আজ ২৬ ফেব্রুয়ারি ৩৩তম তম স্বাধীনতা দিবস উদযাপন করছে কুয়েত। ব্রিটিশদের কাছ থেকে ১৯৬১ সালে মুক্ত হওয়ার পরদিন ২৫ ফেব্রুয়ারী জাতীয় দিবস এবং ১৯৯১ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি ইরাকি আগ্রাসন থেকে মুক্ত হওয়ার কারণে দিনটিকে স্বাধীনতা দিবস হিসেবে ঘোষণা করেছে কুয়েত। প্রতি বছর ২৫ ও ২৬ ফেব্রুয়ারি নানা আয়োজনের মাধ্যমে যথাক্রমে জাতীয় ও স্বাধীনতা দিবস পালন করে দেশটি। কুয়েতের জাতীয় ও স্বাধীনতা দিবসে স্হানীয় নাগরিকদের পাশাপাশি কুয়েতে বসবাসরত বিভিন্ন দেশের অভিবাসীরা আনন্দ উল্লাসে মেতে উঠেন।

উপসাগরের তীর বর্তী ছোট এ দেশটি সমুদ্র সৈকতে প্রবাসীরা ও নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। দুই দিন সরকারি ছুটি থাকায় প্রবাসীদের মাঝে আনন্দ উল্লাসের কমতি নেই। দিবসটি উপলক্ষে কুয়েতের গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা ও সরকারি-বেসকারি ভবন, সড়ক, পার্ক, শপিং মল, বাসাবাড়িসহ সব জায়গা লাল-সবুজ-সাদা ও কালো জাতীয় পতাকার রঙে আলোক সজ্জায় সজ্জিত করা হয়। কুয়েতের বিভিন্ন অঞ্চলে দিবসটি উপলক্ষে আয়োজন করা হয় মেলা, বিভিন্ন নাচ,গান, অভিনয়, সার্কাস, যাদুসহ নানা ধরনের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের।

জাতীয় দিবস ও স্বাধীনতা দিবস ঘিরে কুয়েত সাজে নতুন রূপে। নারী, পুরুষ, বৃদ্ধা ছেলে মেয়ে সবাই জাতীয় পতাকার রঙে পোশাক পরিধান করে। দেশটির গুরুত্বপূর্ণ সড়কে ও সুউচ্চ ভবন গুলোতে কুয়েতের জাতীয় পতাকার পাশাপাশি বিভিন্ন দেশের জাতীয় পতাকা সহ আলোকসজ্জা করা হয়।