Dhaka ০১:৫৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ

  • Reporter Name
  • Update Time : ০৪:২০:০৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • 35

চট্টগ্রাম ডেস্ক: চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) শাখা ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের নেতাকর্মীদের মাঝে সংঘর্ষ হয়েছে। গ্রুপ দুটি হলো বিজয় এবং সিক্সটি নাইন। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ১৫ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। এর মধ্যে গুরুতর আহত চারজনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (চমেক) পাঠানো হয়েছে।

আজ ১৫ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার দুপুর ১টার দিকে সংঘর্ষের শুরু হয়। প্রায় দেড় ঘণ্টা ধরে চলে সংঘর্ষ। বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর ড. নুরুল আজিম সিকদার বলেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। গতকাল রাতেও ক্যাম্পাসে ওই দুই গ্রুপের নেতাকর্মীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। সেই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই আজ আবারও সংঘর্ষে জড়ালেন ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। প্রত্যক্ষদর্শীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, আজ দুপুরে বিজয় গ্রুপের নেতাকর্মীরা সোহরাওয়ার্দী হলের সামনে এবং সিক্সটি নাইনের নেতাকর্মীরা শাহজালাল হলের সামনে অবস্থান নেন। এসময় উভয় গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। এক গ্রুপ আরেক গ্রুপের নেতাকর্মীদের লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছুড়ে। প্রায় দেড় ঘণ্টা ধরে সংঘর্ষ চলে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। জানতে চাইলে সিক্সটি নাইন গ্রুপের নেতা সাইদুল ইসলাম সাইদ বলেন, ইন্টার্নাল ঘটনাকে কেন্দ্র করে এই সংঘর্ষ বেঁধেছে। সোহরাওয়ার্দী হলের বিজয় গ্রুপের মধ্যে অনুপ্রবেশকারী আছে, তারাই মূলত উস্কানি দিয়ে এই সংঘর্ষ বাঁধায়। এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে কমিটি না থাকায় এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। বিজয় গ্রুপের একাংশের নেতা সাখাওয়াত হোসেন বলেন, দুই শিক্ষার্থীর বিভাগের সমস্যা নিয়ে এই সংঘর্ষ বেঁধেছে। গতকাল এই বিষয়ে সমাধান করার জন্য তাদের সিনিয়রদের সঙ্গে কথা হয়। কিন্তু তারা আজ আমাদের কয়েকজন ছোট ভাইকে অতর্কিত হামলা করেছে। এরপর সংঘর্ষ বেঁধেছে। আমরা এই ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই।

বিশ্ববিদ্যালয় চীফ মেডিকেল অফিসার মোহাম্মদ আবু তৈয়ব বলেন, এখানে ১৫ জন চিকিৎসা নিতে এসেছেন। এর মধ্যে চারজনের অবস্থা গুরুতর ছিল। তাদের চমেকে পাঠানো হয়েছে। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। প্রক্টর ড. নুরুল আজিম সিকদার বলেন, এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

Tag :
সর্বাধিক পঠিত

https://dainiksurjodoy.com/wp-content/uploads/2023/12/Green-White-Modern-Pastel-Travel-Agency-Discount-Video5-2.gif

রাজধানীর মতিঝিলে লক্ষ্মী নারায়ণ জিউ মন্দিরের ২০০ কোটি টাকার সম্পত্তি উদ্ধার

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ

Update Time : ০৪:২০:০৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

চট্টগ্রাম ডেস্ক: চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) শাখা ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের নেতাকর্মীদের মাঝে সংঘর্ষ হয়েছে। গ্রুপ দুটি হলো বিজয় এবং সিক্সটি নাইন। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ১৫ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। এর মধ্যে গুরুতর আহত চারজনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (চমেক) পাঠানো হয়েছে।

আজ ১৫ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার দুপুর ১টার দিকে সংঘর্ষের শুরু হয়। প্রায় দেড় ঘণ্টা ধরে চলে সংঘর্ষ। বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর ড. নুরুল আজিম সিকদার বলেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। গতকাল রাতেও ক্যাম্পাসে ওই দুই গ্রুপের নেতাকর্মীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। সেই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই আজ আবারও সংঘর্ষে জড়ালেন ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। প্রত্যক্ষদর্শীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, আজ দুপুরে বিজয় গ্রুপের নেতাকর্মীরা সোহরাওয়ার্দী হলের সামনে এবং সিক্সটি নাইনের নেতাকর্মীরা শাহজালাল হলের সামনে অবস্থান নেন। এসময় উভয় গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। এক গ্রুপ আরেক গ্রুপের নেতাকর্মীদের লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছুড়ে। প্রায় দেড় ঘণ্টা ধরে সংঘর্ষ চলে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। জানতে চাইলে সিক্সটি নাইন গ্রুপের নেতা সাইদুল ইসলাম সাইদ বলেন, ইন্টার্নাল ঘটনাকে কেন্দ্র করে এই সংঘর্ষ বেঁধেছে। সোহরাওয়ার্দী হলের বিজয় গ্রুপের মধ্যে অনুপ্রবেশকারী আছে, তারাই মূলত উস্কানি দিয়ে এই সংঘর্ষ বাঁধায়। এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে কমিটি না থাকায় এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। বিজয় গ্রুপের একাংশের নেতা সাখাওয়াত হোসেন বলেন, দুই শিক্ষার্থীর বিভাগের সমস্যা নিয়ে এই সংঘর্ষ বেঁধেছে। গতকাল এই বিষয়ে সমাধান করার জন্য তাদের সিনিয়রদের সঙ্গে কথা হয়। কিন্তু তারা আজ আমাদের কয়েকজন ছোট ভাইকে অতর্কিত হামলা করেছে। এরপর সংঘর্ষ বেঁধেছে। আমরা এই ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই।

বিশ্ববিদ্যালয় চীফ মেডিকেল অফিসার মোহাম্মদ আবু তৈয়ব বলেন, এখানে ১৫ জন চিকিৎসা নিতে এসেছেন। এর মধ্যে চারজনের অবস্থা গুরুতর ছিল। তাদের চমেকে পাঠানো হয়েছে। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। প্রক্টর ড. নুরুল আজিম সিকদার বলেন, এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।