Dhaka ০২:৪০ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কোরবানির তারিখ প্রকাশ করলো সৌদি আরবের চাঁদ দেখা কমিটি

মাকসুদর রহমান, সৌদি আরব ব্যুরো: সারা বিশ্বে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপন হয়েছে, যার আমেজ কাটেনি এখনও। এরই মধ্যে জানা গেল কোরবানির ঈদের সম্ভাব্য তারিখ। ঈদুল ফিতরের ঠিক দুই মাস দশ দিন পর ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদ পালনের নিয়ম।

সৌদি আরবের চাঁদ দেখা কমিটির ঘোষণা অনুযায়ী চলতি বছরের ১০ জিলহজ বা কোরবানির ঈদ হতে পারে আগামী ১৬ জুন। বাংলাদেশে সাধারণত সৌদি আরব, কাতার, ওমান, আরব আমিরাত এই সকল দেশের পরের দিন কোরবানির ঈদ পালন করা হয়। সেই হিসেবে বাংলাদেশের কোরবানির ঈদ পালিত হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে জুন মাসের ১৭ তারিখ। তবে চাঁদ দেখার ওপর নির্ভর করে তারিখ পরিবর্তন হতে পারে। উল্লেখ্য, মহান আল্লাহ মুসলিম জাতির পিতা হজরত ইবরাহিম (আ.)-কে স্বপ্নে তার সবচেয়ে প্রিয় বস্তু কোরবানির নির্দেশ দেন।

আদেশের পর তিনি সবচেয়ে প্রিয় পুত্র ইসমাইল (আ.) কে কোরবানির সিদ্ধান্ত নেন। এতে আল্লাহ খুশি হন এবং ইসমাইলের পরিবর্তে পশু কোরবানি হয়। এই ঘটনাকে স্মরণ করে সারা বিশ্বের মুসলিম ধর্মাবলম্বীরা আল্লাহ তায়ালার সন্তুষ্টি অর্জনে হিজরি বর্ষপঞ্জি হিসাবে জিলহজ মাসের ১০ তারিখ থেকে শুরু করে ১২ তারিখ পর্যন্ত পশু কোরবানি করেন।

Tag :
সর্বাধিক পঠিত

https://dainiksurjodoy.com/wp-content/uploads/2023/12/Green-White-Modern-Pastel-Travel-Agency-Discount-Video5-2.gif

দেশের সব স্কুল-কলেজ অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ

কোরবানির তারিখ প্রকাশ করলো সৌদি আরবের চাঁদ দেখা কমিটি

Update Time : ০১:৩১:০২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪

মাকসুদর রহমান, সৌদি আরব ব্যুরো: সারা বিশ্বে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপন হয়েছে, যার আমেজ কাটেনি এখনও। এরই মধ্যে জানা গেল কোরবানির ঈদের সম্ভাব্য তারিখ। ঈদুল ফিতরের ঠিক দুই মাস দশ দিন পর ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদ পালনের নিয়ম।

সৌদি আরবের চাঁদ দেখা কমিটির ঘোষণা অনুযায়ী চলতি বছরের ১০ জিলহজ বা কোরবানির ঈদ হতে পারে আগামী ১৬ জুন। বাংলাদেশে সাধারণত সৌদি আরব, কাতার, ওমান, আরব আমিরাত এই সকল দেশের পরের দিন কোরবানির ঈদ পালন করা হয়। সেই হিসেবে বাংলাদেশের কোরবানির ঈদ পালিত হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে জুন মাসের ১৭ তারিখ। তবে চাঁদ দেখার ওপর নির্ভর করে তারিখ পরিবর্তন হতে পারে। উল্লেখ্য, মহান আল্লাহ মুসলিম জাতির পিতা হজরত ইবরাহিম (আ.)-কে স্বপ্নে তার সবচেয়ে প্রিয় বস্তু কোরবানির নির্দেশ দেন।

আদেশের পর তিনি সবচেয়ে প্রিয় পুত্র ইসমাইল (আ.) কে কোরবানির সিদ্ধান্ত নেন। এতে আল্লাহ খুশি হন এবং ইসমাইলের পরিবর্তে পশু কোরবানি হয়। এই ঘটনাকে স্মরণ করে সারা বিশ্বের মুসলিম ধর্মাবলম্বীরা আল্লাহ তায়ালার সন্তুষ্টি অর্জনে হিজরি বর্ষপঞ্জি হিসাবে জিলহজ মাসের ১০ তারিখ থেকে শুরু করে ১২ তারিখ পর্যন্ত পশু কোরবানি করেন।