Dhaka ১২:২১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সুন্দরগঞ্জে শিক্ষক জালিয়াত চক্রের বিরুদ্ধে মামলার নির্দেশ

  • Reporter Name
  • Update Time : ০৬:৪০:২৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ মে ২০২৩
  • 3776

গাইবান্ধা প্রতিনিধি : গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ভূরারঘাট এমইউ বহুমূখী ফাজিল (ডিগ্রী) মাদ্রাসার কতিপয় শিক্ষক জালিয়াতির প্রশ্রয় নেয়ায় চক্রটির বিরুদ্ধে প্রতিষ্ঠানের পক্ষ হতে থানায় মামলা দায়েরের নির্দেশক্রমে অনুরোধ করেছেন ঢাকাস্থ এনটিআরসিএ’র সহকারী পরিচালক (পমুপ্র) মোস্তফা আহমেদ। জানা যায়, উক্ত প্রতিষ্ঠানের ৩ সহকারী শিক্ষক আতিকুর রহমান, নাজমা বেগম (সমাজ বিজ্ঞান) ও মোবাশ্বেরা মাহমুদা (মৌলভী) সনদ জালিয়াতির মাধ্যমে নির্বিঘ্নে চাকরি করে সরকারি অংশের বেতন-ভাতাদি ভোগ করেন। এরই প্রেক্ষিতে তাদের সনদ যাচাই পূর্বক মামলার নির্দেশ প্রদান করেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। যার সূত্র জেশিঅ.গাই/২০১৮/১৪৬২ ও জেশিঅ.গাই/২০১/১৪৫৭, তাং- ১১-১০-২০১৮। স্মারক নং- বেশিনিক/প.মু.প্র/সনদ যাচাই/৭৪৪ (অংশ-১৬)/২০১৭/৫২৯ তাং- ২৯ অক্টোবর ২০১৮ খ্রি.।

এছাড়া, উক্ত মাদ্রাসার ৫ জন শিক্ষকের স্থগিতকৃত এমপিও ছাড়করণের জন্য মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর, কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের দু’টি পৃথক জালপত্র তৈরি করে জালিয়াত চক্র অবৈধভাবে স্থগিতকৃত এমপিও চালু করতে চেয়েছিলেন মর্মে তদন্তক্রমে দোষী ব্যক্তিদেরকে আইনের আওতায় আনায়ণের জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করেন ঢাকাস্থ মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন ও অর্থ) জিয়াউল হাসান। এনিয়ে রবিবার ১৪ মে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক), রংপুর অঞ্চলের সহকারী পরিচালক বেলাল হোসেন তদন্ত কাজ শুরু করেন।

Tag :
সর্বাধিক পঠিত

https://dainiksurjodoy.com/wp-content/uploads/2023/12/Green-White-Modern-Pastel-Travel-Agency-Discount-Video5-2.gif

নিউইয়র্কে সেইভ দ্য পিপল’র উদ্যোগে হালাল খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

সুন্দরগঞ্জে শিক্ষক জালিয়াত চক্রের বিরুদ্ধে মামলার নির্দেশ

Update Time : ০৬:৪০:২৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ মে ২০২৩

গাইবান্ধা প্রতিনিধি : গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ভূরারঘাট এমইউ বহুমূখী ফাজিল (ডিগ্রী) মাদ্রাসার কতিপয় শিক্ষক জালিয়াতির প্রশ্রয় নেয়ায় চক্রটির বিরুদ্ধে প্রতিষ্ঠানের পক্ষ হতে থানায় মামলা দায়েরের নির্দেশক্রমে অনুরোধ করেছেন ঢাকাস্থ এনটিআরসিএ’র সহকারী পরিচালক (পমুপ্র) মোস্তফা আহমেদ। জানা যায়, উক্ত প্রতিষ্ঠানের ৩ সহকারী শিক্ষক আতিকুর রহমান, নাজমা বেগম (সমাজ বিজ্ঞান) ও মোবাশ্বেরা মাহমুদা (মৌলভী) সনদ জালিয়াতির মাধ্যমে নির্বিঘ্নে চাকরি করে সরকারি অংশের বেতন-ভাতাদি ভোগ করেন। এরই প্রেক্ষিতে তাদের সনদ যাচাই পূর্বক মামলার নির্দেশ প্রদান করেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। যার সূত্র জেশিঅ.গাই/২০১৮/১৪৬২ ও জেশিঅ.গাই/২০১/১৪৫৭, তাং- ১১-১০-২০১৮। স্মারক নং- বেশিনিক/প.মু.প্র/সনদ যাচাই/৭৪৪ (অংশ-১৬)/২০১৭/৫২৯ তাং- ২৯ অক্টোবর ২০১৮ খ্রি.।

এছাড়া, উক্ত মাদ্রাসার ৫ জন শিক্ষকের স্থগিতকৃত এমপিও ছাড়করণের জন্য মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর, কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের দু’টি পৃথক জালপত্র তৈরি করে জালিয়াত চক্র অবৈধভাবে স্থগিতকৃত এমপিও চালু করতে চেয়েছিলেন মর্মে তদন্তক্রমে দোষী ব্যক্তিদেরকে আইনের আওতায় আনায়ণের জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করেন ঢাকাস্থ মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন ও অর্থ) জিয়াউল হাসান। এনিয়ে রবিবার ১৪ মে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক), রংপুর অঞ্চলের সহকারী পরিচালক বেলাল হোসেন তদন্ত কাজ শুরু করেন।